জাতীয়

নবম দিনে ৮৭ স্থাপনায় এডিসের লার্ভা, লাখ টাকা জরিমানা


এইবাংলা ডেস্কঃ এডিস মশা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে নগরবাসীকে ডেঙ্গু থেকে সুরক্ষা করতে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)

সোমবার (১৩ জুন) অভিযানের নবম দিনে ১৩ হাজার ৩১টি বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করে ৮৭টিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এছাড়া সাত হাজার ৬৭১টি স্থাপনায় এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এ সময় ১৯টি মামলায় মোট দুই লাখ সাত হাজার ৪০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

গত ৪ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ১০ দিনব্যাপী চিরুনি অভিযানে আজ পর্যন্ত মোট এক লাখ ১৯ হাজার ৪৩টি বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করে মোট ৮৫০টিতে এডিসের লার্ভা এবং ৭১ হাজার ৩৩৬টিতে এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এ পর্যন্ত ১৫১টি মামলায় মোট ২০ লাখ ২২ হাজার ৯১০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

সোমবার উত্তরা অঞ্চলে (অঞ্চল-১) মোট এক হাজার ৪৭১টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ২১টিতে এডিস মশার লার্ভা এবং এক হাজার ১০৩টি স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

মিরপুর অঞ্চলে (অঞ্চল-২) মোট দুই হাজার ৫৩৭টি স্থাপনা পরিদর্শন করে ১১টিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায় এবং ৩৮২টি স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এছাড়া ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ১১টি মামলায় মোট এক লাখ ২৩ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

মহাখালী অঞ্চলে (অঞ্চল-৩) মোট এক হাজার ৫০৪টি স্থাপনা পরিদর্শন করে ২৪টিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায় এবং ৯০৯টি স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এডিসের লার্ভা পাওয়ায় দুটি মামলায় ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

মিরপুর-১০ অঞ্চলে (অঞ্চল-৪) মোট এক হাজার ৪২৫টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে চারটিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এছাড়া ৭৫৮টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

কারওয়ান বাজার অঞ্চলে (অঞ্চল-৫) মোট দুই হাজার ৩৪টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ১০টিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এছাড়া এক হাজার ৫২৯টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

হরিরামপুর অঞ্চলে (অঞ্চল-৬) মোট এক হাজার ৩২৪টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে চারটিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এছাড়া ৯৭৩টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

দক্ষিণখান অঞ্চলে (অঞ্চল-৭) মোট ৮৯৪টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে চারটিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় বাড়ির মালিকদের সতর্ক করে লার্ভা ধ্বংস করা হয়। এছাড়া ৭৩২টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

উত্তরখান অঞ্চলে (অঞ্চল-৮) মোট ৬১৫টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে দুটি স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। তবে ৪৬১টি স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এ সময় এডিসের লার্ভা পাওয়ায় এবং মাস্ক না পরায় মোট ছয়টি মামলায় চার হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

ভাটারা অঞ্চলে (অঞ্চল-৯) মোট ৫০৪টি স্থাপনা পরিদর্শন করে তিনটিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। বাড়ির মালিকদের সতর্ক করে লার্ভা ধ্বংস করা হয়েছে। এছাড়া ২৭৯টি স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

সাঁতারকুল অঞ্চলে (অঞ্চল-১০) মোট ৭২৩টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে চারটিতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে বাড়ির মালিকদের সতর্ক করে লার্ভা ধ্বংস করা হয়। এছাড়া ৫৪৫টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

আরো দেখুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close